Goodman Travels

সাতক্ষীরার আশাশুনিতে বিক্রিত জমির দখল না দিয়ে খাস জমিতে দখল বুঝিয়ে প্রতারণার অভিযোগ

সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলায় জমি বিক্রি করে প্রকৃত জমির দখল না দিয়ে সরকারি খাস জমিতে দখল দেওয়ার মাধ্যমে অভিনব কায়দায় প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে তুলসী কর্মকার (৬০) নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে।

উপজেলার বড়দল ইউনিয়নের মোহাম্মদ নগর বুড়িয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। অভিযুক্ত তুলসী বড়দল গ্রামের মৃত অশ্বিন কর্মকারের ছেলে। প্রতারণার শিকার একই গ্রামের মৃত কিনা শেখের ছেলে মাসুম শেখ (৩৪) ও তার পরিবারের দেওয়া অভিযোগ সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

ভুক্তভোগী মাসুম শেখ (৩৪) অভিযোগ করেন, ২০১৫ সালের ১৬ মার্চ তুলসী কর্মকারের (৬০) কাছ থেকে বুড়িয়া মৌজার এস এ খতিয়ান নং-১১, হাল দাগ নং- ৭৫০ ও ৭৫৭ দাগের ৩.৬৮ একর জমি থেকে সাড়ে ১৬ শতাংশ জমি ক্রয় করি। কিন্তু তুলসী কর্মকার বিক্রিকৃত জমি বুঝিয়ে না দিয়ে পাশ^বর্তী একটি স্থানে তার দখলে থাকা সরকারি খাস জমিতে দখল বুঝিয়ে দেয়। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিদের হস্তক্ষেপে ক্রয়কৃত প্রকৃত জমির দখল বুঝিয়ে দেয় তুলসী।

ভুক্তভোগী মাসুম শেখের মা নাজমা খাতুন (৪৮) জানান, প্রকৃত জমি দখল পাওয়ার পর সেখানে একটি ঘর নির্মান করেন তার ছেলে মাসুম শেখ (৩৪)। কিন্তু জমির বিক্রয়কারী তুলসী কর্মকার তার প্রভাব খাটিয়ে ১০/১৫ জন ব্যক্তিকে সাথে নিয়ে শুক্রবার (৩রা ডিসেম্বর) সকালে উক্ত ঘরটি ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে ৪০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধণ করেছেন সেইসাথে আমাকে ও পুত্রবধূ সালমা খাতুনকে (২৮) মারধর করে ভয়ভীতি দেখায়।

এ ঘটনায় আশাশুনি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি। এসব বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত তুলসী কর্মকারের ছেলে সঞ্জয় কর্মকার (২৫) অশ্লীল ভাষা ব্যবহার করে বলেন, আমি কাউকে ভয় পাইনা, হিসাব করে চলিনা। আমার জায়গায় ঘর নির্মাণ করেছে তাই আমি ভেঙ্গেছি।

এ ঘটনার বিষয়ে জানতে সাতক্ষীরার আশাশুনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার মুঠোফোন নাম্বারে কল দিলে রিসিভ হয়নি। পরে ঘটনা সম্পর্কে লিখে বক্তব্য জানতে চেয়ে মোবাইল ফোনে একটি ক্ষুদে বার্তা পাঠালেও কোনো উত্তর দেননি থানার ওসি।