Goodman Travels

পাবনা চিনিকল বন্ধের ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও পথ সমাবেশ

বিশেষ প্রতিনিধি: পাবনা চিনিকল বন্ধের ষড়যন্ত্র প্রতিহত, বকেয়া বেতনসহ শ্রমিক-কর্মচারী, আখচাষির পাওনাদি পরিশোধসহ ৫ দফার দাবিতে পাবনার ঈশ্বরদীতে এক বিরাট মানববন্ধন ও পথ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বাংলাদেশ চিনিকল শ্রমিক- কর্মচারী ও আখচাষি ফেডারেশনের ডাকে ঈশ্বরদীতে অবস্থিত পাবনা চিনিকল ইউনিয়ন ও আখচাষি কল্যাণ সমিতি ঈশ্বরদী আঞ্চলিক শাখা যৌথভাবে শনিবার দুপুরে ঈশ্বরদী শহরে প্রধান সড়ক জেলাপরিষদ ডাকবাংলা সামনে এই কর্মসূচির আয়োজন করে।
মানববন্ধন ও পথ সমাবেশের পরপরই শ্রমিক-কর্মচারী ও আখচাষিরা ঈশ্বরদী শহরের আকবরের মোড়ে পাবনা- ৪ আসনের সাংসদ মুক্তিযোদ্ধা নুরুজ্জামান বিশ্বাসের সংগে সাক্ষাৎ করে তাদের দাবিসমূহ অবহিত করেন ও তাঁর সহযোগিতা কামনা করেন।
পথ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ আখচাষি ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শাজাহান আলী বাদশা ওরফে পেঁপে বাদশা। বক্তব্য দেন বাংলাদেশ চিনিকল শ্রমিক- কর্মচারী ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও পাবনা সুগার চিনিকল শ্রমিক- কর্মচারী ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জাম উজ্জ্বল সরদার, পাবনা চিনিকল শ্রমিক- কর্মচারী ওয়ার্কস ইউনিয়নের সভাপতি সাজেদুল ইসলাম শাহিন, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, আখচাষি নেতা ও উপজেলা কৃষক লীগের যুগ্ন আহবায়ক মুরাদ আলী মালিথা, আখচাষি আনছার আলী ডিলু প্রমুখ। শ্রমিক- কর্মচারী ও আখচাষিদের এই দাবির প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করে এতে আরও বক্তব্য দেন ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা চান্না মন্ডল, সহ-সভাপতি মো: রশিদুল্লাহ, রেল শ্রমিকলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, জাসদ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আতিয়া ফেরদৌস কাকলীসহ স্থানীয় রাজনৈতিক দলের বিভিন্ন নেতা।
সমাবেশে বক্তারা আগামী ১০ দিনের মধ্যে পাবনা চিনিকল চালু করার সময়সীমা বেঁধে দিয়ে বলেন, অন্যথায় জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনসহ বৃহত্তর আন্দোলনে গড়ে তোলা হবে বলে ঘোষণা দেন। আখচাষি নেতা মুরাদ মালিথা বলেন,  লোকসানের অজুহাতে একটি মহল ঈশ্বরদীর ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান পাবনা চিনিকলটি বন্ধের ষড়যন্ত্র করছে। যা কোনো ভাবেই মেনে নেওয়া হবেনা। ঈশ্বরদী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইসাহাক আলী মালিথা বলেন, পাবনা চিনিকলের শ্রমিক- কর্মচারী ও আখচাষিরা মিলের আর্থিক সংকটের মধ্যেও তারা আখমাড়াই ও আখচাষ অব্যাহত রাখার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছেন। তাই মিলটি দ্রুত চালু করা দরকার। বর্তমানে মিলের ৬৮৭ জন শ্রমিক- কর্মচারী দীর্ঘ চারমাস বেতন না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। পাবনা চিনিকল ওয়ার্কস ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক  আশরাফুজ্জাম উজ্জ্বল সরকার বলেন, এই চিলিকলটি বন্ধের ষড়যন্ত্র হিসেবে এবার এই মিলে আখ মাড়াই অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এখন পর্যন্ত আখ মাড়াইয়ের কোনো নির্দেশনা আসেনি প্রধান কার্যালয় থেকে। এ পরিস্থিতিতে আখমাড়াই শুরু এবং চিনিকলটি বন্ধ না করে এটি চালু রাখাতে হবে। সংগঠনের সভাপতি সাজেদুল ইসলাম শাহিন বলেন,  চিনিকলটিতে আখ মাড়াই চালু ও অবিলম্বে শ্রমিক-কর্মচারীদের বকেয়া বেতন ভাতা পরিশোধ করতে হবে।